১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং
Breaking::

Daily Archives: October 16, 2016

টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃত্তি

tokyo_university

জাপানের টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব সায়েন্স বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তির আবেদন আহ্বান করেছে। স্নাতকোত্তর পর্যায়ের এই বৃত্তির জন্য শিক্ষাজীবনে ভালো ফলাফলসহ স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন, এমন শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করার পর তিন বছরের পিএইচডি কোর্স করার সুযোগ রয়েছে। টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃত্তি বিষয়ক ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, এই বৃত্তির আওতায় প্রতি মাসে একজন শিক্ষার্থীকে ১ লাখ ৫০ হাজার ইয়েন দেওয়া হবে।

২০১৭ সালের এপ্রিলে শুরু হওয়া সেমিস্টারের জন্য আবেদনের শেষ সময় ৩১ অক্টোবর।

বিস্তারিত:s.u-tokyo.ac.jp/en/offices/ilo/scholarship.html

পদত্যাগ করবেন না সালাউদ্দিন

salauddin

মতিঝিল বাফুফে ভবনের সামনে আজও অব্যাহত ছিল ফুটবল সমর্থকদের বিক্ষোভ মিছিল। বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের পদত্যাগের দাবিতে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করেছেন এই সমর্থকেরা। ভবনের বাইরে যখন সমর্থকের আন্দোলনে ব্যস্ত, ভেতরে সংবাদ সম্মেলন করলেন কাজী সালাউদ্দিন।

ফুটবলের এই দুর্দিনে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু পদত্যাগ করার কোনো ইচ্ছায় তাঁর নেই। ভুটানের সঙ্গে হারের পর এই প্রথম গণমাধ্যমে মুখ খুললেন কাজী সালাউদ্দিন। ভুটানের সঙ্গে এমন বিপর্যয় ঘটবে, সেটা নাকি তিনি আগেই জানতেন, ‘অবশ্যই এটা আমাদের ফুটবলের জন্য খুব দুঃখের সময়। আপনারা এই বাজে পারফরম্যান্স দেখে যত কষ্ট পেয়েছেন, আমরাও ততটাই পেয়েছি। তবে আমরা এটা নিয়ে কাজ করছি। এটা নিয়ে আমরা চিন্তিত। আমি এই হার আগেই অনুমান করেছিলাম। কারণ জাতীয় দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স, ফুটবলারদের পারফরম্যান্স ও লিগের কাঠামো দেখে আমার মনে হয়েছিল ভুটানে আমরা জিতব না।’
জাতীয় দলের জন্য যা যা সুযোগ-সুবিধা সবই দিয়েছেন বলে মনে করেন তিনি। তারপরও দলের এমন পারফরম্যান্স দুঃখজনক বলেই জানালেন, ‘বাফুফে কর্মকর্তা হিসেবে আমরা জাতীয় দলের কোচ, ট্রেনিং, আবাসনসুবিধা—সবই দেওয়ার চেষ্টা করেছি। এগুলো নিয়ে কোনো ঘাটতি ছিল না। আমি এটা পারিনি যে আমি নিজে মাঠে গিয়ে খেলে আসব। ওটা পারলে আমি ও সালাম মুর্শেদি গিয়ে খেলে আসতাম। আমাদের দুর্ভাগ্য যে সেটার সুযোগ নেই।’

এই হার থেকেই শিক্ষা নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চান সালাউদ্দিন। ফুটবলার তুলে আনার পুরোনো পরিকল্পনার কথাই নতুন করে বললেন, ‘এত সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার পরও জাতীয় দলের পারফরম্যান্স আশানুরূপ হচ্ছে না। এর মানে শেষ পর্যন্ত আমরা উপলব্ধি করলাম, এই গুটি কয়েক ফুটবলার ভালো খেলার জন্য যথেষ্ট নয়। জানুয়ারি থেকে নতুন কর্মসূচি হাতে নিচ্ছি আমরা। ডিসেম্বরে সোহরাওয়ার্দী কাপ, এরপর হবে শেরেবাংলা কাপ। এ ছাড়া প্রতিবছর অনূর্ধ্ব-১৬ ও অনূর্ধ্ব-১৯ ফুটবল লিগ করব।’
এবার কোনো ক্লাব যদি খেলতে অস্বীকৃতি জানায়, তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর অবস্থান নেবে বাফুফে। দেখা যাক, এসব প্রেসক্রিপশন কোনো কাজে আসে কি না।

থাকতে চান না হাসিনা, রাখতে চান নেতারা

untitled

থাকতে না চাইলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেই ‘আজীবন’ দলের সভানেত্রী হিসেবে চান আওয়ামী লীগের নেতারা। তাঁদের মতে, সরকার এবং দল চালাতে শেখ হাসিনা এখন দৃষ্টান্ত। তাঁর নেতৃত্বের বিকল্প নেই। গতকাল শনিবার এক বৈঠকে এমন কথা বলেছেন দলটির নেতারা।

আওয়ামী লীগের দুজন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও একজন উপদেষ্টা প্রথম আলোকে বলেন, একটি দলের প্রধান যিনি হবেন, তাঁর প্রধান যোগ্যতা হতে হবে দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখা। সর্বস্তরের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের তাঁকে মানতে হবে। এই মুহূর্তে আওয়ামী লীগে এমন যোগ্যতাসম্পন্ন কেবল শেখ হাসিনাই আছেন। তাই তাঁর থাকতে চাওয়া না-চাওয়াটা এখানে বিষয় নয়। দলের জন্যই তাঁকে আবারও সভাপতি থাকতেই হবে।

তবে ওই নেতারা এ-ও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার থাকতে না চাওয়ার বিষয়টির তাৎপর্য নেই তা নয়। বরং এটা স্পষ্ট যে তিনি ভবিষ্যতের জন্য বিকল্প কারও হাতে দলের হাল ছেড়ে দেওয়ার কথা ভাবছেন। এটা দলের জন্যও ভালো। ওই নেতাদের মত হচ্ছে, আরও অন্তত ১০ বছর শেখ হাসিনাকেই সভানেত্রী পদে থাকতে হবে। এই সময়ের মধ্যে বিকল্প কাউকে ওই পদের জন্য তৈরি করা হবে।

গতকাল শনিবার রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সভায় প্রধানমন্ত্রী যখন সভানেত্রী পদে না থাকার কথা বলেন, তখন প্রায় সব নেতাই এর বিরোধিতা করেন। অনেকে মুখে না বললেও মাথা নেড়ে না সূচক ইঙ্গিত দেন।

জাতীয় কমিটির খুলনা জেলার সদস্য চিশতি সোহরাব হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, গতকালের সভায় তিনি বলেছেন, ‘আপনি (শেখ হাসিনা) দলে না থাকতে চাইতেই পারেন। আমাদেরও অধিকার আছে আপনাকে ধরে রাখার। আওয়ামী লীগ আপনার হাতেই নিরাপদ।’

বৈঠকে উপস্থিত একজন সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য প্রথম আলোকে বলেন, জাতীয় কমিটির যেসব সদস্য বক্তব্য দিয়েছেন, তাঁরা প্রধানমন্ত্রীকে বর্তমান পদে থাকার ব্যাপারে অনুরোধ করেছেন।

আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলনে যে ঘোষণাপত্র করা হচ্ছে, সেখানেও ‘নেতৃত্বের কারিশমা-আওয়ামী লীগের প্রধান সম্পদ জননেত্রী শেখ হাসিনা’ নামে একটি অনুচ্ছেদ রাখা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘শেখ হাসিনা দেশকে মর্যাদা ও সম্মানে বিশ্ব পরিমণ্ডলে এক অনন্য উচ্চতায় তুলে ধরেছেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের শক্তি ও সম্পদ দুটোই।’ এরপরেই প্রধানমন্ত্রীর পাওয়া সব পুরস্কারের কথা ঘোষণাপত্রে তুলে ধরা হয়েছে।

১৯৮১ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ত্রয়োদশ সম্মেলনে শেখ হাসিনা প্রথমবার সভানেত্রী নির্বাচিত হন। এরপরের সম্মেলনগুলোতে তাঁর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় টানা ৩৫ বছর দলের সভানেত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

কেবল গতকালের জাতীয় কমিটির সভায় নয়, ২ অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনেও প্রধানমন্ত্রী সভানেত্রী না থাকার ব্যাপারে কথা বলেন। তিনি বলেন, নতুন কেউ দলের দায়িত্ব নিলে তিনি খুশি হবেন।

প্রধানমন্ত্রীর দলীয় পদে থাকা না-থাকা নিয়ে কথা হয় আওয়ামী লীগের একজন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যের সঙ্গে। নাম না প্রকাশের শর্তে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগে বিশ্বাসযোগ্য ও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নেতা বর্তমানে শেখ হাসিনা ছাড়া আর কেউ নেই। তাঁর বিকল্প কাউকে আওয়ামী লীগের কেউ এখনো ভাবেনি। তবে প্রধানমন্ত্রীর সুদূরপ্রসারী চিন্তা আছে, সে ক্ষেত্রে ওই পদে বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকারীর বাইরে যাওয়া উচিত হবে না।’

ঢাকায় বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট

dd

তিনদিনের সফরে ঢাকা পৌঁছেছেন বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম। ২০১২ সালের ১ জুলাই দায়িত্ব গ্রহণের পর এবারই প্রথম বাংলাদেশ সফরে আসলেন তিনি। আজ রোববার বিকেলে এমিরেটসের একটি ফ্লাইটে ঢাকায় পৌঁছান তিনি। শাহজালাল বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন, বিশ্ব ব‌্যাংক সদর দফতরে বাংলাদেশের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা।

এছাড়াও ঢাকায় বিশ্ব ব‌্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি চিমিয়াও ফানসহ সংস্থার কর্মকর্তারাও বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন।

আগামীকাল সোমবার সকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সাথে বৈঠক করবেন বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট। বিকেলে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বিশ্ব দারিদ্রমুক্ত দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে মঙ্গলবার সকালে বরিশালে যাবেন তিনি। সেখানে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন তিনটি প্রকল্প সরেজমিন ঘুরে দেখবেন। ওইদিন বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে বৈঠক করবেন। পরে একইদিন বিকেলে বিশ্বব্যাংক কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং ও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সাথে বৈঠক করে রাতে ঢাকা ঢাকা ত্যাগ করবেন তিনি।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ধারাবাহিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে গত দুই দশকে দুই কোটিরও বেশি মানুষকে দারিদ্রমুক্ত করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এই সাফল্য উদযাপন করতে কিম ১৭ অক্টোবর বিশ্ব দারিদ্র বিমোচন দিবস উপলক্ষে ঢাকায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, বাংলাদেশ ও বিশ্বব্যাংক গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিনের অংশীদারিত্বমূলক সম্পর্ক আরো জোরদার করতেই কিমের এই সফর।

ঋণ জালিয়াতি: তাজউদ্দিনের জামিন স্থগিত

basic-bank

বেসিক ব্যাংকে ঋণ জালিয়াতির ঘটনায় করা এক মামলায় ঋণগ্রহীতা মেসার্স ইউকে বাংলা ট্রেডিং লিমিটেডের চেয়ারম্যান আহমেদ তাজউদ্দিনের জামিন স্থগিত করেছেন চেম্বার বিচারপতি। এর আগে হাইকোর্ট তাঁকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়ে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা এক আবেদনের শুনানি নিয়ে আজ রোববার অবকাশকালীন চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে আগামী ১০ নভেম্বর আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে। আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। অন্যদিকে, তাজউদ্দিনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শফিক আহমেদ।

গত ২৬ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট তাজউদ্দিনকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়ে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন। আত্মসমর্পণের দিন দুই কোটি টাকা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে জমা দিতে বলা হয়েছিল। দুই মাস পরপর দুই কোটি টাকা করে কিস্তি পরিশোধ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়। কোনো কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হলে তাজউদ্দিনের জামিন বাতিল হয়ে যাবে বলেছেন আদালত।

ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে দুদক আবেদন করে। আদেশের পর দুদকের কৌঁসুলি খুরশীদ আলম খান প্রথম আলোকে বলেন, হাইকোর্টের পুরো আদেশ স্থগিত করেছেন চেম্বার বিচারপতি। ১০ নভেম্বর এ বিষয়ে আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

আত্মসাতের জন্য জালিয়াতির মাধ্যমে ৪৫ কোটি ৬০ লাখ ৩৭ হাজার টাকা ঋণ নেওয়ার অভিযোগে তাজউদ্দিনের বিরুদ্ধে গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর গুলশান থানায় মামলাটি করে দুদক। এ মামলায় ২৬ সেপ্টেম্বর আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের আবেদন জানান তাজউদ্দিন।

বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির ঘটনায় গত বছরের ২১, ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বর গুলশান, মতিঝিল ও পল্টন থানায় ৫৬টি মামলা হয়। এসব মামলায় আসামির সংখ্যা ১২০।

করাচি-দিল্লি-মুম্বাই ফ্লাইট বাতিল

pia-five

পাকিস্তান এয়ারলাইনসের বেশ কয়েকটি ফ্লাইট বাতিল হয়ে গেছে। যেগুলি ভারতে যাওয়ার কথা ছিল। যাত্রী সংখ্যা অনেক কমে যাওয়ায় মুম্বই ও দিল্লিতে যাওয়ার এই বিমানগুলি বাতিল করে দেয়া হয়। দুই দেশের মধ্যে তৈরি হওয়া অশান্তির পরিস্থিতির জেরেই এমন ঘটনা বলে মনে করা হচ্ছে।

শনিবার একটি বিবৃতি দিয়ে পাকিস্তান ইন্টারন্যাসনাল এয়ারলাইনস জানিয়েছে, লাহোর থেকে নয়াদিল্লির বিমান পরিষেবা স্বাভাবিক রয়েছে। তবে, গত তিন-চার সপ্তাহ ধরে খুব কম যাত্রী সংখ্যা থাকার জন্য করাচি-নয়াদিল্লি ও করাচি-মুম্বই রুটের বিমান বাতিল করা হয়েছে। যাদের এই রুটের বিমানের টিকিট বুক করা ছিল, তাদের অন্য কোনো এয়ারলাইনসের বিমানে যাওয়ার নির্দেশিকা দেয়া হয়েছে।

কাশ্মিরের ঘটনাবলীর প্রেক্ষাপটে উত্তপ্ত পরিস্থিতি। গত ৮ অক্টোবর থেকে প্রত্যেকদিন ১৮ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয় লাহোর ও করাচি- এই দুই শহরের এয়ারস্পেস। কারণ হিসেবে ফের বলা হয়েছিল ‘অপারেশনাল রিজন্স’। এত গুরুত্বপূর্ণ এয়ারস্পেশ এতদিনের জন্য আগে কখনও বন্ধ করা হয়নি। এর আগে এই দুই শহরেই নিচু দিয়ে বিমান ওড়ানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। ৩৩,০০০ ফুটের নিচে বিমান ওড়ানো যাবে না বলে সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছিল। পরে বলা হয়, লাহোরের আকাশে ২৯,০০০ ফুটের নিচে ওড়ানো যাবে না বিমান।

ব্রিকস-বিমসটেক সম্মেলনে যোগ দিতে গোয়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

s

ব্রিকস-বিমসটেক আউটরিচ সম্মেলনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ভারতের পর্যটন নগরী গোয়া যাচ্ছেন। এই সম্মেলনের সাইডলাইনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং থাইল্যান্ড, নেপাল ও ভুটানের নেতৃবৃন্দের সাথে তার দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

নরেন্দ্র মোদির সাথে হাসিনার বৈঠকে নিরাপত্তা ইস্যুর পাশাপাশি তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি প্রাধান্য পাবে। কেননা স্থল সীমানা চুক্তি বাস্তবায়নের পর তিস্তাই এখন বাংলাদেশের অগ্রাধিকারের শীর্ষে রয়েছে। এ ছাড়া গত বছর মোদির ঢাকা সফরকালে নেয়া সিদ্ধান্তগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি সংক্ষিপ্তভাবে পর্যালোচনা করা হতে পারে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, প্রধানমন্ত্রী গোয়ায় বহুপক্ষীয় ফোরামে যোগ দেবেন। ভারতে দ্বিপক্ষীয় সফরের জন্য যে উপাদানগুলো প্রয়োজন তা এখনো পূর্ণতা পায়নি। শীর্ষ পর্যায়ের দ্বিপক্ষীয় সফরে বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতির প্রত্যাশা থাকে। বাংলাদেশ বিশেষ করে তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির দিকে তাকিয়ে আছে। এই ইস্যুতে অগ্রগতি হলে আগামী বছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতে দ্বিপক্ষীয় সফরে যেতে পারেন।

ব্রিকস-বিমসটেক আউটরিচ সম্মেলনের সাইডলাইনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হবে। এতে রাশিয়ায় সহযোগিতায় বাংলাদেশে নির্মিতব্য প্রথম পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র, নিরাপত্তা সহযোগিতাসহ পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা হবে। প্রেসিডেন্ট পুতিন আগামী বছর বাংলাদেশ সফর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

গোয়ায় গতকাল অর্থনৈতিকভাবে উদীয়মান ও বিশ্ব রাজনীতিতে ক্রমবর্ধমান প্রভাব বিস্তারকারী দেশগুলোর জোট ব্রিকসের শীর্ষ সম্মেলন শুরু হয়েছে। এতে রাশিয়া, চীন, ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারতের সরকারপ্রধানরা যোগ দিয়েছেন। সম্মেলন শেষে আজ অবকাশকালে (রিট্রিট) যোগ দেবেন বিসমটেক নেতারা। এতে অংশ নিতে বাংলাদেশ, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, নেপাল, ভুটান ও শ্রীলঙ্কার সরকারপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মোদি। এটি ব্রিকস-বিমসটেক আউটরিচ সম্মেলন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। ব্রিকস-বিমসটেক মিলে মোট ১১টি দেশের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ গোয়ায় মিলিত হচ্ছেন।

সম্মেলনে যোগদান শেষে প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল সোমবার সকালে ঢাকা ফিরে আসবেন।

১৯৯৭ সালে গঠিত সাত জাতি বিমসটেক নিয়ে ভারতের বেশ উচ্চাশা ছিল। কেননা এই জোটে তার চির প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান নেই। কিন্তু মিয়ানমারের জান্তা সরকার ও পরবর্তী সময়ে থাইল্যান্ডের রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে জোটটি প্রত্যাশা অনুযায়ী অগ্রসর হতে পারেনি। ২০০৪ সালের জুনে বিমসটেক মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল (এফটিএ) রূপরেখা চুক্তিতে যোগ দেয় বাংলাদেশ। একই বছর সেপ্টেম্বরে ব্যাংককে এর আওতায় ট্রেড নেগোসিয়েশন কমিটির (টিএনসি) প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কমিটি পণ্য বাণিজ্য নিয়ে সমঝোতা শেষ করতে পারেনি। পণ্যের পর টিএনসির সেবা ও বিনিয়োগ খাতে সমঝোতা শুরু করার কথা। গোয়ায় অনুষ্ঠেয় আউটরিচ সম্মেলনে এফটিএ নিয়ে বিমসটেক নেতাদের কাছ থেকে একটি নির্দেশনা আদায়ের চেষ্টা করবে ভারত।

বিসমটেক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, পরিবহন ও যোগাযোগ, জ্বালানি, পর্যটন, প্রযুক্তি, মৎস্যসম্পদ এবং কৃষি খাতে সহযোগিতা নিয়ে কাজ করে। ঢাকায় এর সদর দফতর স্থাপন করা হয়েছে।

ভারত-রাশিয়ার ‘এস-৪০০ ট্রায়াম্ফ’ মিসাইল সিস্টেম চুক্তি

s-400-air-defence-system

ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে কয়েক বিলিয়ন ডলারের জ্বালানি ও প্রতিরক্ষা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এর মধ্যে আলোচিত ‘এস-৪০০ ট্রায়াম্ফ’ বিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী মিসাইল সিস্টেম চুক্তিও রয়েছে। ভারতের গোয়া রাজ্যে ব্রিকস সম্মেলনে শনিবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের উপস্থিতিতে এ চুক্তি হয়। দু’দেশের কর্মকর্তারা একে দুটি দেশের মধ্যে অংশীদারিত্ব জোরদার করার লক্ষণ হিসেবে দেখছেন কর্মকর্তারা।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকের পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের (ভারত-রাশিয়া) সম্পর্ক সত্যিকারার্থে স্বতন্ত্র এবং বিশেষ অধিকারের সম্পর্ক।’

বৈঠকে ভারতের ক্রমবর্ধমান জ্বালানি ও বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে মোদি ও পুতিন জ্বালানিসংক্রান্ত সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তবে গণমাধ্যমগুলো জানায়, রাশিয়ার বৃহত্তম তেল কোম্পানি রোসনেফট কয়েক বিলিয়ন ডলার চুক্তির মাধ্যমে ভারতের এসার তেল কোম্পানি নিজেদের জিম্মায় নিতে পারে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দুই নেতার বৈঠকে সন্ত্রাস দমন থেকে শুরু করে প্রতিরক্ষা, পরমাণু বিদ্যুৎ, পরিকাঠামোসহ একাধিক বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতা নিয়ে কথা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই ভারতের অন্যতম পছন্দের সমরাস্ত্র ও প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম সরবরাহকারী হল পুতিনের দেশ।

শনিবার ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের ‘এস-৪০০ ট্রায়াম্ফ’ বিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ভূমি থেকে আকাশ (স্যাম) মিসাইল সিস্টেম চুক্তি স্বাক্ষর করে দুই দেশ। এর সঙ্গে থাকবে প্রায় হাজার মিসাইল।

ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এ সিস্টেমগুলো চীন ও পাকিস্তান সীমান্তে মোতায়েন করা হবে। প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে দুই পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্রের মধ্যে আরও একাধিক চুক্তি হয়েছে এদিন।

ঘোষণা অনুযায়ী, ভারতীয় নৌসেনার জন্য চারটি অত্যাধুনিক স্টেলথ ফ্রিগেট যুদ্ধজাহাজ তৈরি করবে রাশিয়া।