১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং
Breaking::

Daily Archives: September 10, 2016

ভারতীয় বিমান বাহিনীর মিগ-২১ বিধ্বস্ত

mig-crash_0_0_0

শনিবার রাজস্থানের বার্মের জেলায় ভেঙে পড়ল ভারতীয় বিমানবাহিনীরএকটি মিগ-২১ ৷মাটি থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার উচ্চতা দিয়ে ওড়ার সময় একটি ফাঁকা মাঠে ভেঙে পড়ে বিমানটি ৷ তবে বিমানে থাকা দুই পাইলট অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন৷

ভারতীয় বিমান বাহিন সূত্রে জানা গেছে, বারমেরের উত্তেরলাই বিমানঘাঁটি থেকে প্রশিক্ষণের জন্য বিমানটি ওড়ে। এরপর মাটি তেকে আকাশে প্রায় ২০ কিলোমিটার উপরে ওড়ার বেশকিছুক্ষণের মধ্যে ভেঙে পড়ে৷ যেহেতু বিমানটি মালিও কি ধানি এলাকার একটি ফাঁকা মাঠে ভেঙে পড়ে তাই কোনো বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটেনি ৷

এদিকে বেগতিক বুঝে বিমানের দুই চালক প্যারাসুটের মাধ্যমে ঝাঁপ দেয় ৷ ফলে প্রামে বেঁচে যান তারা৷

জঙ্গিদের একজন মেজর জাহিদের স্ত্রী হতে পারে: আইজিপি

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক বলেছেন, রাজধানীর আজিমপুরে পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে আহত হওয়ার পর আটক তিন নারী জঙ্গির একজন মেজর জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নাহার শিলা বলে ধারণা করছে পুলিশ।

আজ শনিবার রাতে আজিমপুরে পুলিশের সঙ্গে জঙ্গিদের গোলাগুলির ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে আইজিপি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

জাহিদুল ইসলাম ২ সেপ্টেম্বর মিরপুরের রূপনগরে পুলিশের অভিযানে নিহত হন। তিনি অবসরপ্রাপ্ত মেজর। ৩ সেপ্টেম্বর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বিবিসি বাংলাকে বলেছিলেন, জাহিদুল সেনাবাহিনীর একজন সাবেক সৈনিক এবং জেএমবির সামরিক শাখার গুরুত্বপূর্ণ একজন নেতা। গুলশান ও শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলায় অংশগ্রহণকারীদের এই ব্যক্তি প্রশিক্ষণ দিয়েছেন বলে পুলিশ সন্দেহ করে।

আইজিপি শহীদুল হক বলেন, আজ গোলাগুলিতে নিহত জঙ্গির নাম জুলহাস করিম হতে পারে। এই করিম গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলাকারী জঙ্গিদের বাড়ি ভাড়া করে দিয়েছিলেন।

আজিমপুরের বর্তমানে ঘটনাস্থলে সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিটের দল উপস্থিত হয়ে আলামত সংগ্রহ করছে।

সাতকানিয়ায় আ’লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

timthumb_php

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলায় জহিরুল ইসলাম নামে এক আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাত ১০টার দিকে উপজেলার কাঞ্চনা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বশিরখিল গ্রামে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। জহিরুল ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

এ বিষয়ে সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদউদ্দিন খন্দকার বলেন, কে বা কারা রাতের আঁধারে তাকে হত্যা করেছে আমরা জানি না। তবে হত্যাকারীদের ধরতে অভিযান চলছে।

জহিরুলের মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান ওসি।

টঙ্গীতে বয়লার বিস্ফোরণে নিহত ২৭

28401-untitled-5

গাজীপুরের টঙ্গীর বিসিক শিল্প নগরীর টাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেড নামের একটি প্যাকেজিং কারখানায় আজ শনিবার বয়লার বিষ্ফোরণে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডে ও ভবন ধসে নারী ও শিশুসহ ২৭ জন নিহত এবং শতাধিক লোক আহত হয়েছেন। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে। নিহতদের মধ্যে পথচারিও রয়েছেন বলে জানা গেছে। রাত সাড়ে ৮টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসেনি।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার ও আগুন নেভানোর কাজ করছেন। ঘটনা তদন্তে গাজীপুর জেলা প্রশাসন পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। অন্যদিকে দমকল বাহিনীও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

শনিবার সকাল ৬টায় কারখানার বয়লার রুমে বিস্ফোরণের সাথে সাথে আশপাশের এলাকাও কেঁপে উঠে। মুহূর্তের মধ্যে কারখানার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে আগুনের লেলিহান শিখা। দুপুর পর্যন্ত ধ্বংসস্তুপ থেকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ২৭টি লাশ উদ্ধার করেন দমকল বাহিনীর কর্মীরা। অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক। গুরুতর আহত ৩০ জনকে টঙ্গী সরকারি হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। টঙ্গী সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে আরো ১২ জনকে। প্রচণ্ড বিস্ফোরণে কারখানার পাঁচ তলা ভবনটি বিসিক শিল্প নগরীর প্রধান সড়কের ওপর ধ্বসে পড়লে পথচারিরাও হতাহত হন।

আজই ছিল শেষ অফিস
ঈদুল আজহা উপলক্ষে শনিবার অফিস শেষে কারখানা ছুটি দেয়ার কথা ছিল। এদিনই কারখানার শ্রমিকদের বেতন ও বোনাস দেয়ার কথা ছিল। তাই বেতন বোনাস নিয়ে প্রিয়জনদের সাথে ঈদের ছুটি কাটাতে বাড়ি যাওয়ার আগ্রহে শ্রমিকরা খোশ মেজাজে কাজ করছিলেন । কিন্তু ভয়াবহ এ দুর্ঘটনায় মুহূর্তেই তাদের স্বপ্ন চুরমার হয়ে যায়।

জানা গেছে, চিপসসহ বিভিন্ন পণ্যের মোড়ক তৈরি হয় টাম্পাকো ফয়েলস কারখানায়। ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানিসহ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন টোব্যাকো কোম্পানির সিগারেটের প্যাকেট ও প্যাকেটের ভেতরের ফয়েলস কাগজ সরবরাহ করে থাকে কারখানাটি। এসব প্যাকেট বা মোড়ক প্রস্তুতে ব্যবহৃত হয় বিভিন্ন কেমিক্যাল। পাঁচতলা কারখানা ভবনের প্রতিটি ইউনিটেই কেমিক্যালের সাহায্যে উৎপাদন প্রক্রিয়া চলে। এসব কেমিক্যালের কারণে আগুনের প্রজ্জলন ক্ষমতা বেড়ে যাওয়ায় আজ দমকল বাহিনীর কর্মীদের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম খেতে হয়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানান, বাতাসের কারণে আগুন নেভাতে বেগ পেতে হচ্ছে।

কি কারণে বয়লার বিস্ফোরণ ঘটেছে, সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

টঙ্গী সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শ্রমিক কামরুল হাসান জানান, তিনি রাতের পালার ডিউটি শেষে সকাল ৫টা ৫০ মিনিটে কারখানার মূল গেটে আসেন। একই সময় দিনের পালার শ্রমিকরা কারখানায় প্রবেশ করছিলেন। বের হওয়ার সময় তিনি দেখতে পান সিকিউরিটি রুমের পেছনে বয়লার রুমের গ্যাসের সিলিন্ডার থেকে ফুস ফুস শব্দে গ্যাস বের হচ্ছে। কারখানার শিফট ইনচার্জ সুভাস চন্দ্র দাস অফিসের সামনে দাঁড়িয়ে বিষয়টি নিয়ে মোবাইলে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলছিলেন। এমন সময় বিকট শব্দে বয়লার রুমে বিস্ফোরণ ঘটে। মুহূর্তের মধ্যে কারখানার সামনের অফিস ভবন চারপাশে ধ্বসে পড়ে। অল্পের জন্য তিনি প্রাণে রক্ষা পান। এসময় ধ্বংসাবশেষ ছিটকে তিনিসহ (কামরুল হাসান) অনেকে আহত হন।

বিসিক প্রধান সড়কের পাশেই টাম্পাকোর অফিস ভবন। দুর্ঘটনায় পথচারীরাও ভবনের নিচে চাপা পড়েন।

গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক আক্তারুজ্জামান ও স্থানীয়রা জানান, কারখানায় ফয়েল ও প্লাস্টিক জাতীয় দাহ্য জিনিস থাকায় ও বাতাসের কারণে মুহূর্তেই আগুন ভয়াবহ আকার ধারণ করে কারখানার পুরো ভবনে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এসময় কর্মরত শ্রমিকদের অনেকে কারখানা থেকে বের হয়ে আসতে পারলেও কয়েকজন ভিতরে আটকা পড়েন। অগ্নিকাণ্ডে পাঁচতলা ওই কারখানা ভবনের একাংশের চারটি তলা ধসে যায়। এতে কারখানার বেশ কয়েক কর্মী ধ্বংস স্তুপের নিচে চাপা পড়েন ও অগ্নিদগ্ধ হন। এসময় কারখানা সংলগ্ন সড়ক দিয়ে রিক্সায় চড়ে যাওয়ার সময় ধ্বসে পড়া ভবনের নিচে চাপা পড়েন শিশুসহ রিক্সার এক যাত্রী ও চালক।

খবর পেয়ে টঙ্গী, জয়দেবপুর, উত্তরা, কুর্মিটোলা, সদর দপ্তর, সাভার, ইপিজেড, কালিয়াকৈর, শ্রীপুর ও মিরপুরসহ ফায়ার সার্ভিসের আশেপাশের বিভিন্ন স্টেশনের কয়েকটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানো ও হতাহতদের উদ্ধার কাজ শুরু করে। তাদের সাথে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীরাও অংশ নেন। হতাহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে প্রেরণ করা হয়।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে ভবনের ধ্বংসাবশেষের সাথে পাথর বোঝাই একটি ট্রাকও বিকল হয়ে পড়ে আছে।

স্থানীয়রা ভবনের নিচ থেকে ব্যাটারিচালিত এক রিকশা চালক ও তার দুই যাত্রীর লাশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নেন।

কারখানার দক্ষিণ পাশের দেয়াল ঘেষে গাজীপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আসাদ সিদ্দিকীর বাসভবন।

তিনি বলেন, ফজরের নামাজ পড়ে তাসবিহ তাহলিল পড়ছিলাম। হঠাৎ বিকট শব্দে ভবন কেঁপে উঠল। মনে হলো বড় ভূমিকম্প হয়েছে এবং আমার বাড়ি ভেঙে পড়ছে। বিকট শব্দে আমার ভবনের সব জানালার কাঁচ ভেঙে গেছে। ভবনের একপাশে আগুন লাগলে এলাকাবাসী নিভিয়ে ফেলে। বিস্ফোরণের শব্দে আশপাশের সব কারখানার জানালার কাঁচ ভেঙে রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে। এলাকাবাসী স্বত:স্ফূর্তভাবে এগিয়ে না এলে আগুন আশপাশের আবাসিক এলাকায় ছড়িয়ে পড়তো।

কারখানাটির পশ্চিম পাশে রেল লাইন এবং উত্তরে আহসান উল্লাহ মাস্টার ওড়াল সেতু। সেতুর পাশে নতুন বাজারের বাসিন্দা আব্দুল আজিজ বলেন, সকালে বিকট শব্দে ঘুম ভাঙে। এসময় পুরো এলাকা কেঁপে উঠে। মনে হলো উড়াল সেতু ভেঙে নিচে পড়েছে। দৌঁড়ে ঘর থেকে বের হয়ে সেতুর দিকে গেলাম। দেখলাম সেতু ঠিকই আছে। রেল লাইনের ওপারে টাম্পাকো জ্বলছে।

লাব্বাইকে মুখরিত মিনার ময়দান

hajj

হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। হাজীরা সৌদি আরবের সময় অনুযায়ী ৭ জিলহজ মাগরিবের নামাজ আদায়ের পর মিনার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন। আজ সূর্যোদয় থেকে মিনায় অবস্থানের মধ্য দিয়ে শুরু হল হজের আনুষ্ঠানিকতা। কাল সূর্যোদয় পর্যন্ত তারা মিনায় অবস্থান করবেন।

পবিত্র মক্কা নগরী থেকে তাঁবুর শহরখ্যাত মিনার দূরত্ব ৯ কিলোমিটার। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মনসুর আল তুর্কি জানা, হজযাত্রীদের মিনায় নিরাপদের পৌঁছানো এবং সেখানে অবস্থানের বিষয়ে নিরাপত্তাকর্মীরা কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি আরো জানান, শনিবার সকাল থেকেই হজযাত্রীরা মিনায় সমবেত হতে শুরু করবেন। এ কারণে এ সময়টায় সেখানে তীব্র ভীড় পরিলক্ষিত হবে। আজ সারাদিনই হজযাত্রীরা মিনায় অবস্থান করবেন। সেখানে তারা পবিত্র হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা পালন করবেন।

এ বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ১ হাজার ৭৫৮ জন হজ পালনের উদ্দেশে মক্কায় গেছেন। গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজ আদায়ের পর থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে যাওয়া ১৩ লাখ ২৩ হাজার ৫২০ জন মক্কা নগরী থেকে হেঁটে, বাসে করে মিনার উদ্দেশে রওনা হন। ‘লাব্বাইক, আল্লাহুমা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে আরাফাতের ময়দান মুখরিত করবেন তারা।

আজ ফজর থেকে কাল ফজরের নামাজ পর্যন্ত অবস্থান শেষে হাজীরা আরাফাতের ময়দানে রওনা হবেন। আরাফাতে গিয়ে সূর্যাস্ত পর্যন্ত অবস্থান করবেন। সেখানে হজের খুতবা শুনবেন। জোহর এবং আসরের নামাজ একত্রে আদায় করবেন। আরাফাতে সারা দিন কাটাবেন খোলা আকাশের নিচে। এরপর হাজীরা আরাফাত থেকে মুজদালিফায় যাবেন। সেখানে গিয়ে মাগরিব ও এশার নামাজ একত্রে আদায় করবেন।

মুজদালেফাতেও খোলা আকাশের নিচে রাত যাপন করবেন। সেখান থেকে জামারায় শয়তানকে মারার জন্য পাথর (কংকর) সংগ্রহ করে নেবেন। ১০ জিলহজ ফজরের নামাজ আদায় করে মুজদালিফা থেকে হাজীরা আবার মিনায় ফিরবেন। মিনায় হাজীরা পশু কোরবানি, মাথা মুণ্ডন, শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ ও ইহরাম খোলা এই কাজগুলো সম্পন্ন করবেন।

এই আহকামের অংশ হিসেবে হাজীরা মিনায় গিয়ে ১০ জিলহজে কোরবানি করবেন এবং মাথা মুণ্ডন বা চুল ছাঁটাবেন। এছাড়া বাকি দুটি কাজও করবেন। এরপর মক্কায় পবিত্র কাবাঘর তাওয়াফ করবেন। এই তাওয়াফের নাম বিদায়ী তওয়াফ। এর আগে সৌদি আরব গিয়েই হজযাত্রীরা প্রথমে একবার অবশ্যই পবিত্র কাবা ঘর তওয়াফ করেন। বিদায়ী তওয়াফ সেরে আবার মিনায় ফিরে ১১ ও ১২ জিলহজ সেখানে অবস্থান করে প্রতিদিন তিন শয়তানকে পাথর মারবেন।

এভাবে সম্পন্ন হবে হজের পুরো আনুষ্ঠানিকতা। ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে একটি হচ্ছে হজ পালন। জীবনে অন্তত একবার হজ পালন করতে হয়। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা হজ পালনের উদ্দেশে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন।

আজিমপুরে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান, নিহত ১, আটক ৩

nari-jongi

রাজধানীর আজিমপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযানে একজন নিহত হয়েছেন। এছাড়া একজন নারী গুলিবিদ্ধসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতের পরিচয় জানা যায়নি। আহতরা হলেন- নারী নাসরিন আখ্তার (২২), পুলিশ কনস্টেবল মাহতাব (২৫), লাবলু (২৮), জহির উদ্দিন, রামচন্দ্র বিশ্বাস ও শাহজাহান আলী।

এদের মধ্যে নাসরিনের শরীরে তিনটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। এছাড়া মাহতাব ও লাভলুর দুই হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। অন্যদের চোখে মরিচের গুড়া ছিটিয়ে দেয়া হয়েছে। আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই বাড়ি থেকে জঙ্গী সন্দেহে তিনজন নারীকে আটক করা হয়েছে। আজ শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় আজিমপুর বিডিআর ২ নম্বর গেটের কাছের ফয়সাল ও হাবিবদের বাড়ির একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালায় পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট (সিটি) সদস্যরা।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শাহবাগ থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আজ সন্ধ্যার পর পুলিশের একটি দল বিজিবি নম্বর গেটের পাশে একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালায়। ফ্ল্যাটে কলিং দিলে ভেতর থেকে জঙ্গিরা দুই পুলিশের সদস্যের উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। একইসাথে তারা বাতাসে মরিচের গুড়া ছিটিয়ে দিলে পুলিশের চোখে লাগে। পরে পুলিশ গুলি চালায়। এতে ওই ফ্ল্যাটে থাকা নাসরিন নামে এক নারী জঙ্গি গুলিবিদ্ধ হয়।

গাড়ি আসছেও না, যাচ্ছেও না

1464713476_p-22

নতুনআলো ডটকম: দেশের দুই অঞ্চলের মহাসড়কে আজ শনিবার সকাল থেকে দেখা দিয়েছে একই ধরনের সংকট। ঢাকা-রংপুর ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক দুটির দুই পাশেই যানজটে আটকে আছে বিপুলসংখ্যক গাড়ি। ঢাকামুখী কোনো গাড়ি নড়ছে না। একই ঘটনা বিপরীতমুখেও।

ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল গোলচত্বর থেকে ঢাকাগামী গাড়িগুলো নড়ছে না। সকাল আটটা থেকে এ অবস্থা। এ মুখে গাজীপুরের কোনাবাড়ী পর্যন্ত যানজটের কারণে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে হাইওয়ে পুলিশ জানিয়েছে।

এই মহাসড়কে ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী গাড়িগুলো এক লেন ধরে যাচ্ছে মাঝেমধ্যে, খুবই ধীরগতিতে। তবে বেশির ভাগ সময়ই গাড়ি যানজটে থমকে থাকছে।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল কাদের জিলানী বলেন, হাটিকুমরুল থেকে কোনাবাড়ী পর্যন্ত মহাসড়কের দুই পাশে যানজট এবং অতিরিক্ত গাড়ির চাপে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

অন্যদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কুমিল্লার দাউদকান্দির বিশ্বরোড এলাকা থেকে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ার ভবেরচর পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার এলাকায় মহাসড়কের দুই পাশে তীব্র যানজট চলছে।

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ওসি আবদুল আউয়াল বলেন, যান চলাচল স্বাভাবিক করতে হাইওয়ে পুলিশের চেষ্টা চলছে।

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে নিরক্ষরতা দূর করতে হবে-শিবির সেক্রেটারী

unnamed

নতুনআলো ডটকম :
শিবিরের সেক্রেটারী জেনারেল ইয়াছিন আরাফাত বলেছেন, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ সবার কাম্য। কিন্তু সমৃদ্ধ দেশ গঠনে অন্যতম প্রধান বাধা হলো নিরক্ষরতা। তাই সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে হলে নিরক্ষরতা দূর করতে হবে।
আজ রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী পূর্ব আয়োজিত কেন্দ্রীয় ঘোষিত সাক্ষরতা অভিযানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, শিক্ষা জনগণের মৌলিক অধিকার ও উন্নতির পথে প্রধান নিয়ামক হলেও বাংলাদেশ নিরক্ষরতা দূর করার ক্ষেত্রে তেমন সফল হয়নি। বছরের পর বছর শুধু আশ্বাস ছাড়া প্রশাসন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেনি। কিন্তু কথার ফুলঝুড়ি দিয়ে সফলতা আসেনা। জাতিকে এগিয়ে নিতে হলে নিরক্ষরতা দূরিকরণের কোন বিকল্প নেই। সাক্ষরতা মানুষকে আলোকিত ও কর্মদক্ষ করে উৎপাদনশীল মানব সম্পদে পরিণত করে। নিরক্ষর জনগোষ্ঠী শুধুমাত্র সমাজ নয় দেশের জন্যও বোঝা। দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানব সম্পদের প্রয়োজন। ছাত্রশিবির শতভাগ সাক্ষরতা নিশ্চিত করতে নিজেদের অবস্থান থেকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মূলত শতভাগ শিক্ষিত জাতি গঠনের জন্য সরকারকেই কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। অন্যথায় জনগণকে নিরক্ষর রেখে সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়া সম্ভব নয়।